মেনু নির্বাচন করুন

খাল ও নদী

ইমামপুর ইউনিয়ন পরিষদের বহু নদনদী রয়েছে এর মধ্য রয়েছে।

 

 

                        নদী সমূহঃ

 

০১। ফুলদী নদী

 

                 মুন্সীগঞ্জের নদীগুলোর মধ্য অন্যমত নদী হচ্ছে মেঘনা নদী। সেই নদীর অন্যতম শাখা ফুলদী নদী, ইমামপুর ইউনিয়ন, গজারিয়া ইউনিয়ন, টেংগারচর ইউনিয়ন এবং হোসেন্দী ইউনিয়ন এর প্রধান নদী এটি। এই নদী ইমামপুর,গজারিয়া ও হোসেন্দী ইউনিয়নকে বিভাজন করেছে ছন্দের সাথে। প্রায় ৪০,০০০(চল্লিশ হাজার লোকের একমাত্র এই নদীই বরশা তাদের জীবন যাপনের জন্য।

 

০২। আধার মানিক নদী।

 

                            ইমামপুর ইউনিয়নের অন্যমত নদী আধার মাকিন নদী। দৌলতপুর,ষোলআনী,আধার মানিক,ইমামপুর,হোগলাকান্দি দিয়ে এই নদী চর চৌদ্দ কাহনিয়া দিয়ে বেড়ীয়ে গেছে গোমতী নদীর দিকে। এই নদী ইমামপুর ইউনিয়ন, বাউশিয়া ইউনিয়ন ও গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নকে ভাগ করেছে। এই নদীটি প্রায় ১৮,০০০(আঠার হাজার) মানুয়ের নদীর পানির এক মাত্র উৎস।

 

০৩। চর কালীপুর নদী।

 

                          ইমামপুর ও গুয়াগাছিয়াকে এই নদী ভাগ করেছে। গুয়াগাছিয়ার প্রায় ৭০ ভাগ মানুষ তাদের যাতায়াত করে এই নদী দিয়ে। এই নদীটির উৎপত্তি মেঘনা নদী থেকে এবং শেষে মিলেয়ে গোমতী নদীতে।

 

                         খাল সমূহঃ

 

০১। মাথাভাঙ্গা খালঃ

 

              ফুলদী নদীর অন্যতম প্রধান খাল এটি প্রায় ৩ কিলোমিটার লম্বা এই খালটি প্রায় ৩,০০০ মানুষের পানির অভাব পূরন করে। এই খালটি প্রায় ২০০ একর জমির চাষাবাতের একমাত্র পানির উৎস।

 

০২। চর সাহেবানী খালঃ

 

                        চর সাহেবানী খালটি উপজেলা সড়ক (ভবেরচর--- রসূলপুর) এই সড়কটির সাথে একত্রে মিলে রয়েছে। এই খালটি ঘিরে বসতী আর বিভিন্ন প্রকার খামার গড়ে উঠেছে।

 

০৩। রসুলপুর খালঃ

                     রসুলপুর বাসীদের জন্য এই খালটি অত্যন্ত্য গুরুত্বপূর্ন  কারন এই খালটি ঘিড়েই রয়েছে কয়েকশত একর জমীর চাষ হয়। বর্ষায় এই খালটি দিয়ে পানি প্রভাহের মাধ্যমে চাষাবাদের উপযোগী করে পুরো বিলটিকে।